মুক্তিযোদ্ধা যাচাই বাছাই সর্বশেষ খবর

এবার রয়েছে মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য নতুন একটি সংবাদ পাশাপাশি মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকা বেড়েছে বলে জানা যাচ্ছে। নতুন করে মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকা যুক্ত করার জন্য এখন পর্যন্ত প্রায় এক লাখ সুপারিশ পেয়েছে জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলর ।

অনেক স্থানে নিয়ম-নীতি অনুসরণ না করায় এই বিপুল সংখ্যক সুপারিশ সমূহ যাচাই-বাছাই প্রক্রিয়ার বিশৃঙ্খলার মধ্যে পড়েছে ।গত বছরের একুশে জানুয়ারি মহানগর জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে থেকে প্রাথমিক যাচাই-বাছাই শুরু হয়। মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা বলেছেন , মুক্তিযোদ্ধা তালিকাভুক্ত করার জন্য কোন কোন স্থানীয় মন্ত্রী সংসদের প্রভাব রয়েছে। 

তালিকাভুক্তির জন্য আর্থিক লেনদেনের ও অভিযোগ রয়েছে। ভুয়া মুক্তিযুদ্ধের অভিযোগে কারো ভাতা বন্ধের সুপারিশ এসেছে। তাছাড়া সব কমিটির সুপারিশের সংখ্যা সব মিলিয়ে দেড় লাখে পৌঁছাতে পারে। এত পরিমান সুপারিশ যাচাই-বাছাই এর জন্য দুই বছর লাগতে পারে বলে জানিয়েছেন মন্ত্রণালয়ের  কর্মকর্তারা। 

এবার নিয়ে সপ্তম বারের মতো তালিকা পরিবর্তন ও নতুন করে আরো মুক্তিযোদ্ধার নাম তালিকাভুক্ত করতে যাচাই-বাছাই প্রক্রিয়া চলছে বেশি। গত ৪৬ বছরে ছয়বার মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকা পরিবর্তন করা হয়েছে। মুক্তিযোদ্ধাদের সংজ্ঞা ও মানদন্ড পাল্টেছে দশবার। 

মন্ত্রণালয়ের সূত্রে আরও জানা গেছে , এবার সংসদের নেতৃত্বে উপজেলা, জেলা ও মহানগর পর্যায়ের কমিটিদের তালিকা যাচাই-বাছাই কমিটির শুধু সম্মানীয় খরচ বাবদ প্রায় ৫ কোটি টাকা বরাদ্দ হয়েছে। সরকার রাষ্ট্রীয় অর্থ ও প্রচুর সময় ব্যায়ের পরও প্রকৃত ও নির্ভুল মুক্তিযোদ্ধা বের করতে পারেননি বলে সমালোচলা রয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে মুক্তিযোদ্ধা বিষয় কমিটি জানান, “এপর্যন্ত প্রায় এক লাখ সুপারিশ এসেছে । অনেক কমিটি আমাদের দেয়া নিয়ম নীতি অনুসরণ করেননি, এটা ঠিক। কমিটি ইচ্ছামত কাজ করছে । এছাড়া যেখানে মুক্তিযোদ্ধাদের কোন উপস্থিতি ছিল না সেখানে সুপারিশ আমলে নেব না। “

বর্তমানে ২ লাখ ৩১ হাজার মুক্তিযুদ্ধের নাম তালিকায় রয়েছে। মুক্তিযোদ্ধাদের পুরাতন তালিকার যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছে, যারা নতুন করে সনদ পাওয়ার জন্য আবেদন করেছেন এবং গেজেটে যাদের নাম রয়েছে তাদের ব্যাপারে যাচাই-বাছাইয়ের জন্য মহানগর ,জেলা ও উপজেলায় পর্যায়ের কমিটিতে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় গত বছরের ১২ই জানুয়ারি গেজেট প্রকাশ করে। 

যাচাই-বাছাই কমিটিতে স্থানীয় সংসদ অথবা তার মনোনীত একজন মুক্তিযোদ্ধা প্রতিনিধি, মন্ত্রণালয়ে মনোনীত একজন স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা, বিভাগীয় দায়িত্বপ্রাপ্ত  জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা, কাউন্সিলরের সদস্য মনোনীত একজন স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা, সংসদে কেন্দ্রীয় কাউন্সিলরের মনোনীত একজন স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা, জেলা উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডারের প্রতিনিধি , সংশ্লিষ্ট জেলার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক অথবা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইউএনও রয়েছেন । 

মন্ত্রণালয়ের সূত্রে আরও জানা যায় , শতদিক জেলার মুক্তিযোদ্ধা যাচাই বাছাই করার ক্ষেত্রে ইউএনও কোন ধরনের নিয়ম কানুন মানে নেই বলে অভিযোগ এসেছে । অনলাইনে আবেদন নিয়ে যাচাই-বাছাই করার কথা । কিন্তু স্থানীয় সংসদীয় ও প্রভাবশালী ব্যক্তিদের চাপে তাৎক্ষণিক আবেদন জমা নিয়ে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে তালিকাভুক্ত হয়েছেন অনেকে।

স্থানে মুক্তিযোদ্ধাদের উপস্থিতিতে যাচাই-বাছাই প্রক্রিয়া সম্পন্ন করার কথা থাকলেও অনেক ইউএনও আবেদনকারীদের একজন একজন করে ডেকে যাচাই বাছাই করেছেন বলে জানা গেছে অনেক ক্ষেত্রেই।

সরকার দেশে স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশ নেয়া দেশের শ্রেষ্ঠ সন্তানদের তালিকা করার পাশাপাশি রাজাকার, আলবদর, আলসামসু বাহিনী সহ স্বাধীনতা বিরোধীদের তালিকা তৈরির পদক্ষেপ ও নিয়েছে । এজন্য চলিত বছরের ১৭ জানুয়ারি মন্ত্রীসভা কমিটির বৈঠকে জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলর ,আইনের সংশোধিত খসরার উন্মদন দেওয়া হয়।

পূর্ববর্তী পাওয়া নোটিশ সমূহ :

  • সবমিলিয়ে ২,০৫,৭২০ ভাতাভোগীর অনুকূলে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য দেওয়া উৎসব ভাতা বাবদ ১৮০,০৬,৩৩,৬৩৭ টাকা (একশত আশি কোটি ছয় লক্ষ cetris হাজার ছয়শত সাইত্রিশ)টাকা প্রদানের আর্থিক মঞ্জুরি জ্ঞাপন করা হয়েছে ( সাক্ষর নং-৫৩০,তারিখ: ১৫ জুন ২০২২ ) ।
  • সর্বমোট ২৩ জন ভাতাভোগীর অনুকূলে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য দেওয়া উৎসব ভাতা বাবদ ১,১৮,৩৬৪ টাকা (এক লক্ষ আঠারো হাজার তিনশত চৌষট্টি) টাকা প্রদানের আর্থিক মজুরি জ্ঞাপন করা হয়েছে । ( স্মারক-৬৯০, তারিখ :৩০ জুন ২০২২ ) ।
  • সর্বমোট ০৩ জন ভাতাভোগীর অনুকূলে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য দেওয়া উৎসব ভাতা বাবদ ৩০,০০০ টাকা (ত্রিশ হাজার) টাকা প্রদানের জ্ঞাপন করা হয়েছে  ( স্মারক-১৮৯, তারিখ: ৩০-০৬-২০২২ ) ।
  • সর্বমোট ৭৯ জন ভাতাভোগীর অনুকূলে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য দেওয়া উৎসব ভাতা বাবদ ৫,৬৬,৬৯৯ টাকা (পাঁচ লক্ষ ছেষট্টি হাজার নয়শত নিরানব্বই ) টাকা প্রদানের আর্থিক মঞ্জুরি জ্ঞাপন করা হয়েছে ( স্মারক-১৮৮, তারিখ :৩০-৬-২০২২ ) ।
  • সর্বমোট ০২ জন ভাতাভোগীর অনুকূলে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য দেওয়া উৎসব ভাতা বাবদ ২০,০০০ টাকা (বিশ হাজার টাকা) টাকা প্রদানের আর্থিক মঞ্জুরি জ্ঞাপন জ্ঞাপন করা হয়েছে ( স্মারক-১৮৭, তারিখ: ৩০-০৬-২০২২ ) ।
  • সর্বমোট ৩২০ জন ভাতাভোগীর অনুকূলে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য দেওয়া উৎসব ভাতা বাবদ ২৩৬৫৩০০ ( তেইশ লক্ষ পরবাড়ি হাজার তিনশত ) টাকা প্রদানের আর্থিক মজুরি জ্ঞাপন করা হয়েছে । (স্মারক-১৮৬ ,‌‌ তারিখ: ৩০-০৬-২০২২ ) ।

Leave a Comment