অ্যাসাইনমেন্ট লেখার নিয়ম

শিক্ষা জীবনে অ্যাসাইনমেন্ট খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু অনেকেই আছেন যারা সঠিক ভাবে জানেন না অ্যাসাইনমেন্ট কি এবং অ্যাসাইনমেন্ট লেখার নিয়ম কি?। আজকের এই পোস্টে আপনারা জানতে পারবেন অ্যাসাইনমেন্ট কাকে বলে এবং কিভাবে সঠিক নিয়মে অ্যাসাইনমেন্ট লেখার নিয়ম। পোস্টটি ভালো লাগলে শেয়ার করে সবাইকে দেখার সুযোগ করে দিন।

অ্যাসাইনমেন্ট কি?

অ্যাসাইনমেন্ট হলো একটি কাজ বা কাজের অংশ যা দেওয়া হয় মূলত পড়াশোনার অংশবিশেষ হিসেবে। অ্যাসাইনমেন্টের সাথে লিখিত কাজ এবং ব্যবহারিক কাজও জড়িত থাকে।

অ্যাসাইনমেন্ট-এর শিরোনাম পৃষ্ঠা :

অ্যাসাইনমেন্ট-এর জন্য শিরোনাম পৃষ্ঠা গুরুত্বপূর্ণ। এখানে লেখার ক্ষেত্রে আসতে পারে –

  • বিষয়ের নাম
  • লেখকের নাম
  • শিক্ষকের নাম
  • কোর্সের নাম
  • বিভাগের নাম
  • বিদ্যালয়, প্রতিষ্ঠানের নাম
  • লেখা জমা দেয়ার তারিখ

অ্যাসাইনমেন্টের প্রয়োজনীয় কিছু বিষয় :

শিরোনাম পৃষ্ঠার পর বিস্তারিত সূচিপত্র দিতে পারেন। অ্যাসাইনমেন্ট-এর লেখা হবে অনেকটা গবেষণাধর্মী। তবে লেখার ভাষা গুরুগম্ভীর হবে না। অ্যাসাইনমেন্ট লিখতে গবেষকের মন কিংবা অনুসন্ধিৎসু মনে লিখতে হবে। গ্রুপ স্টাডি করেও অ্যাসাইনমেন্ট লিখতে পারেন। শুধু নম্বর পাবার জন্যই নয় বাস্তবতা তুলে ধরতে যথাসম্ভব সুন্দর উপস্থাপনা করতে হবে। আপনার শিক্ষক যে বিষয়টি চাচ্ছেন সেটি আপনি কীভাবে এনেছেন সেটি খেয়াল রাখবেন। 

অ্যাসাইনমেন্টের রূপরেখার সর্বজন স্বীকৃত কোনো কাঠামো নির্ধারিত করা নেই। প্রতিটি প্রতিষ্ঠানেরই তাদের নিজস্ব রূপরেখা বা কাঠামো থাকতে পারে। আপনার প্রতিষ্ঠানে অ্যাসাইনমেন্টের জন্য যদি নির্দিষ্ট কোনো রূপরেখা থাকে তা অবশ্যই মেনে অ্যাসাইনমেন্টি সম্পন্ন করতে হবে।

ক. অ্যাসাইনমেন্ট হলো শিক্ষার্থীদের কাজের একটি অংশ যা ঘরে বসে করতে দেওয়া হয়।

খ. অ্যাসাইনমেন্ট হলো একটি কাজ যা কাউকে দেওয়া হয়, সাধারণত তাদের কাজের অংশবিশেষ হিসাবে।

অ্যাসাইনমেন্ট লেখার নিয়মঃ

১। একটি কভার পেজ থাকবে, পেজটি ফর্মাল ডিজাইন দ্বারা তৈরিকৃত হলে ভালো হয়।

২। কভার পেজে সাবজেক্ট অনুযায়ী একটি লোগো থাকতে হবে।

৩। কভার পেজের উপরের দিকে বড় স্পষ্ট বিষয় লেখতে হবে, এটি অর্ধচন্দ্রাকৃতির হলে ভালো দেখাবে তবে সাধারন সোজা হলেও কোন সমস্যা হবে না।

৪। নিচের দিকে লেখকের নাম, শ্রেণী, রোল, বইয়ের নাম ইত্যাদি লিখতে হবে।

৫। এসাইনমেন্ট এর লাস্টে একটি ফাকা সাদা পেজ থাকতে হবে।

৬। আদর্শ এসাইনমেন্টগুলোতে বিশেষ করে পলিপ্লাস্টিক মলাট দ্বারা বাধায় করতে হয়। (তবে ছাত্র-ছাত্রীদের এই বিষয়টি বাধ্যতামূলক নয়)

৭। এসাইনমেন্ট এর ভেতরের লেখার পেজে যথেষ্ট মার্জিন করা থাকতে হবে।

৮। আদর্শ এসাইনমেন্টের একটি পেজের শুধু উপরে সাইটে বা ডান সাইটে লিখতে হয়, বাম পাশে লেখা ঠিক নয়, তবে লিখলেও অসুবিধা হবে না।

৯। কোন একক বিষয়ের ওপর এসাইনমেন্ট ছোট করে লিখলেও ৭-৮ পৃষ্ঠার বেশি লিখতে হবে এবং আদর্শ এসাইনমেন্ট গুলোতে আরও বড় ২০-৫০ পেজও লিখা লাগতে পারে। তবে ছাত্রছাত্রীদের সিলেবাস নির্দিষ্ট করে দেওয়ায় অযথা বড় করা ঠিক হবে না, তবে বিভিন্ন প্রশ্ন টপিককে বড় করে ব্যাখ্যায় লিখতে হবে। এখানে ব্যাখ্যা গুলো মুখস্থ বা বইতে যা আছে তাই শুধু তা না লিখে নিজের মতামত, চিন্তা-গবেষণা, সৃজশীলতা ও উল্লেখ করতে হবে।

১০। এসাইনমেন্ট সাধারনত স্টাইলিশ অক্ষরে লিখা যাবে না, তাই স্পষ্ট ও সকল অক্ষরের যথাযথ সাইজ রাখার বিষয়ে ভালোভাবে খেয়াল করতে হবে।

১১। এসাইনমেন্ট এর তথ্যের উৎস যেকোন কিছুর উপর ভিত্তি করে হতে পারে যেমনঃ বই, গল্পের বই, উপান্যাস, কাব্যগ্রন্থ, ইন্টারনেট ইত্যাদিও হতে পারে এবং এতে কোন সমস্যা হবে না, তবে হুবুহু কপি করা যাবেনা। উৎস পড়ে যা বুঝবেন সেটিই কাজে লাগিয়ে নিজের মতামত, চিন্তা-গবেষণা, সৃজশীলতা ব্যাখ্যা করে লিখতে হবে। উপদেশ মুলক বানী কোন ব্যক্তি বা লেখকের কথা লিখার সময় ডাবল কোটেশনে লিখতে হবে।

১২। এসাইনমেন্টটি কাগজের এক পাশে লিখতে হবে। অর্থাৎ বইয়ের মত মেলালে লেখা শুধু ডান পাশে থাকবে এবং বাম পাশে থাকবেনা। অর্থাৎ পৃষ্ঠার তলার পাশে লেখা যাবেনা।

১৩। বড় বড় ক্ষেত্রে এসাইনমেন্ট হাতে লিখে মডেল তৈরি করার পরে হুবহু সেটা টাইপ করে প্রিন্ট করে বাধাই করে জমা দিতে হয়। কিন্তু এখানে যেহেতু ছাত্রছাত্রীদের পরিক্ষার বিকল্প রয়েছে তাই নির্দেশ দেওয়া হয়েছে যে, ছাত্র ছাত্রীকে নিজ হাতে কাল বলপয়েন্ট দিয়ে লিখতে হবে। অর্থাৎ কোনো ভাবেই প্রিন্ট করা যাবেনা।

১৪। নিজের চিন্তা-গবেষণা, সৃজশীলতা কাজে লাগিয়ে খুজে বের করে লিখবেন। অন্য কাউকে নিজের হুবহু কপি করে লিখে দিতে পারবেনা।

শিক্ষকের দেয়া নির্ধারিত তারিখের মধ্যে লিখিত অ্যাসাইনমেন্টি বিদ্যালয়ে জমা দিতে হবে।

জমাদানের ব্যর্থতার জন্য কোন প্রকার সুপারিশ বা কোনো প্রকার অনুরোধ, আবেদনপত্র গ্রহনযোগ্য নয়।

শেষ পর্যন্ত পড়ার জন্য ধন্যবাদ। আশা করি পোস্টটি আপনাদের খুব উপকারে আসবে। আপনি যদি এই পোস্ট দ্বারা উপকৃত হয়ে থাকেন, পোস্টটি যদি আপনার ভালো লেগে থাকে তাহলে অবশ্যই আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করবেন এবং তাদের উপকৃত হওয়ার সুযোগ করে দিবেন। ধন্যবাদ

Leave a Comment