পৃথিবীর সবচেয়ে ভালো মানুষ কে

আজকে আমাদের প্রতিবেদন হচ্ছে, “পৃথিবীর সব চেয়ে ভালো মানুষ কে?” এই বিষয়টি নিয়ে। পৃথিবীর সবচেয়ে ভালো মানুষ একমাত্র সেই হতে পারেন, যার মধ্যে রয়েছে ভালো মানুষ হওয়ার সব ধরনের গুনসমূহ। তিনি আর অন্য কেউ নন, তিনি হচ্ছেন মুসলিম বিশ্বের সর্বশেষ এবং সর্বশ্রেষ্ঠ নবী ও রসূল হযরত মুহাম্মাদ (সাঃ)।

হযরত মুহাম্মাদ (সাঃ) বর্তমান সৌদি আরবে অবস্থিত মক্কা নগরীর কুরাইশ বংশের বনু হাশিম গোত্রে জন্মগ্রহণ করেছেন। হযরত মুহাম্মাদ (সাঃ) ৫৭০ খ্রিষ্টাব্দের ২৯ আগস্ট অথবা আরবি রবিউল আউয়াল মাসের ১২ তারিখ জন্মগ্রহণ করেন।

বর্তমানে, শুধু যে মুসলমানদের মধ্যে তাকে শ্রেষ্ঠ মানুষ বলা হয়ে থাকে এমনটি নয়, অন্যান্য ধর্মাবলম্বীর লোকেরা যারা তাঁর সম্পর্কে জানে তাঁরাও তাঁকে শ্রেষ্ঠ মানব হিসাবে মেনে থাকেন।

বিশ্ব বিখ্যাত লেখক ও গবেষক মাইকেল এইচ হার্ট ১৯৭৮ সালে একটি বই লিখেছেন যেটি হচ্ছে The 100: A Ranking Of The Most Influential Persons In History এবং এই বইটি পাঠক মহলে অনেক সাড়া পেয়েছে। বইটির প্রধান ভাষা হলো ইংরেজি এবং বাংলা সংস্করণে বইটির নাম রাখা হয়েছে শ্রেষ্ঠ ১০০ মনীষীর জীবনী। (-মাইকেল এইচ হার্ট)।

এই বইটিতে পৃথিবীর প্রভাবশালী একশো শ্রেষ্ঠ মানবের সংক্ষিপ্ত জীবনী তুলে ধরেছেন তিনি এবং  তারমধ্যে বইটির শুরুতে প্রথম যার জীবনী তুলে ধরা হয়েছে, তাঁর নাম হলো হযরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াল্লাম।

মাইকেল এইচ হার্ট থেকে শুরু করে জর্জ বার্নার্ড শ’ পর্যন্ত প্রায় সবাই একবাক্যে স্বীকার করেরে নিয়েছেন যে, পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ মানব হচ্ছেন হযরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াল্লাম ৷

মাইকেল এইচ হার্ট যদিও খৃস্টান ধর্মের অনুসারী, তিনি চাইলেই তার ধর্মালম্বীদের যে কোন একজন মনীষীকে সবার উপরে স্থান দিতে পারতেন। তবে তিনি “পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ মানব কে” কেন এই খ্যাতিটা তার ধর্মালম্বীদের কোন মনীষীকে দেননি? আসুন তার মতামত জেনে নিই। 

খৃস্টানদের ধর্মীও বিশ্বাসে তাদের প্রধান হলো যিশু। তাই, মাইকেল এইচ হার্ট যিশু সহ প্রত্যেক মনীষীদের জীবন যাত্রার মান ও অবদানের প্রতি বিশেষ ভাবে লক্ষ্য রেখেছেন।

মাইকেল এইচ হার্ট ব্যক্ত করেছেন, “পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ মানব হিসেবে আমি প্রথম স্থানে রাখতে চেয়েছিলাম যিশুকে। কিন্তু যিশুর মধ্যে কিছু গুরুত্বপূর্ণ গুণের ঘাটতি রয়েছে, যে গুণগুলো রাসূলুল্লাহ(সাঃ) এর মাঝে বিদ্যমান ছিল।” 

তন্মধ্যে রাসূলুল্লাহ(সাঃ) তিনি একজন সফল রাষ্ট্র নায়ক, শাসক এবং যোদ্ধা ছিলেন। এই গুণগুলো যিশুর মধ্যে ছিল না। এজন্য রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এর নাম টপকিয়ে যিশুর নাম প্রথম স্থানে রাখা যুক্তিযুক্ত মনে করেননি।

তাই, মাইকেল এইচ হার্ট ‘পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ মানব কে?’ এই প্রশ্নের গবেষনার প্রেক্ষিতে শেষ পর্যন্ত চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে হযরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াল্লামকে প্রথম স্থানে রেখেছেন।

মহানবী হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম হলেন পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ মানুষ। তিনি পৃথিবীর সর্বোকালের সর্বশ্রেষ্ঠ মানব। গুনে, আচার-আচরনে, চরিত্রে তিনি ছিলেন ফুলের মতো পবিত্র। এই সকল গুন থাকার কারনেই বিশ্বের সর্বশেষ এবং সর্বশ্রেষ্ঠ নবী হযরত মুহাম্মাদ (সাঃ) কে আখ্যায়িত করা হয়েছে লন্ডন মিউজিয়ামে

 

নবী হযরত মুহাম্মাদ (সাঃ) এর দয়া আর ক্ষমার কোনো তুলনা নেই এবং তার ন্যায়বিচার সকল শাসকের জন্য আদর্শ ছিল এবং থাকবে। তিনি সর্বাধিনায়ক হওয়া সত্ত্বেও অত্যন্ত সাধারণভাবে জীবন যাপন করতেন এবং তার কোনো প্রাতিষ্ঠানিক জ্ঞান না থাকা শর্তেও তিনি ছিলেন সবচেয়ে প্রজ্ঞাময়।

আসুন পৃথিবীর আদর্শ মানব, পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ মানুষ, এই পৃথিবীর সর্বশ্রেষ্ঠ ব্যক্তি বা পৃথিবীর সবচেয়ে ভালো মানুষ যেটাই বলেন না কেন মহানবী (সাঃ) এর উক্তিগুলো জেনে নেই যাকে ইসলামে হাদিস বলা হয়।

  • বান্দার উপর আল্লাহর অধিকার হলো, তারা কেবল তাঁরই আনুগত্য ও দাসত্ব করবে এবং তাঁর সাথে কোনো অংশীদার বানানো যাবে না। (সহীহ বুখারী)
  • পবিত্রতা ঈমানের অর্ধেক। (সহীহ মুসলিম)
  • বলো : ‘আমি আল্লাহর প্রতি ঈমান এনেছি’ ; তারপর এ কথার উপর অটল থাকো। (সহীহ মুসলিম)
  • যে ব্যক্তি লোক দেখানোর জন্যে সালাত আদায় করল, সে শিরক করলো। (আহমদ)
  • যখন রমযান শুরু হয়, তখন রহমতের দরজা খুলে দেয়া হয়। (সহীহ বুখারী)
  • যে জ্ঞানের সন্ধানে বের হলো, সে আল্লাহর পথে বের হলো। (তিরমিযী)
  • সর্বোত্তম বাণী আল্লাহর কিতাব। (সহীহ মুসলিম)
  • প্রতিটি ব্যক্তি তার কাজের তেমন ফলই পাবে, যা সে নিয়্যত করেছে। (সহীহ বুখারী)
  • উত্তম চরিত্রের চাইতে অন্য কোনো বড় মর্যাদা আর হয় না। (ইবনে হিব্বান)

এছাড়াও আরো অনেক উক্তি রয়েছে তার যেগুলো মানবজাতির জন্য আলোর দিশারি। আপনি যদি হাদিস পরে থাকেন তাহলে ইসলাম সম্পর্কে আরো বিস্তারিতভাবে অনেক বিষয় জানতে পারবেন।

উপরোক্ত আলোচনাই ছিলো, পৃথিবীর আদর্শ মানব, পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ মানুষ, এই পৃথিবীর সর্বশ্রেষ্ঠ ব্যক্তি বা পৃথিবীর সবচেয়ে ভালো মানুষ ইত্যাদি নিয়ে প্রশ্নের উত্তর।

আশা করি উপরোক্ত আলোচনা আপনাদের ভালো লেগেছে। আমাদের আলোচনাটি আপনাদের ভালো লেগে থাকলে অবশ্যই আপনার বন্ধুবান্ধবদের সাথে শেয়ার করবেন। আমাদের আলোচনা শেষপর্যন্ত পড়ার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ।

Leave a Comment